১৪ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, সকাল ৬:৪৩
নোটিশ :
Wellcome to our website...

মাসুদা খানম শেলি’র একগুচ্ছ প্রেমের কবিতা

রিপোর্টার
মঙ্গলবার, ১৪ মে ২০২৪, ০৬:৪৩ পূর্বাহ্ন

।১।।সুখ-দুঃখের কেনা বেচা।।

যার কাছে দুঃখ বেঁচে
কিনতে চেয়েছি সুখ,
তারই দেওয়া বেদনায়
চৌঁচির আজ আশাহত বুক।

সেখানে উথাল পাথাল ঢেউ
সেখানে আসে চরা।
ভালোবাসায় হেলা করে যদি কেউ
হয়ত সেখানেও আসবে কখনো খরা।

।২।।যদি থাকো রাজি।।

যখন লিখেছিলাম নিজ নাম বালুকা বেলায়,
তোমার নাম ছিলো মনের আপন তলায়।
জান না তুমি, আমার জানতে ইচ্ছে কতো –
তুমি কি মাথুরাসক্ত হও, বিরহে কাতর আমারই মতো?
দৃশ্যের অন্ধকারে স্বপ্নের গায়ে হীরার আলো জ্বেলে,
অগম পারে পাই আমি তোমায় হৃদয়-পাখা মেলে।
বেল ফুলের সুবাস নিয়ে ইচ্ছেরা সব মেলে ডানা,
মেঘের ভেলায় উড়ে এই মন তোমায় নিয়ে, পথ নেই জানা।
স্বপ্নে হারাই, স্বপ্ন উড়াই, স্বপ্নে রাখি বাজি,
তোমার জন্য মরতে পারি, বাঁচতেও পারি যদি থাকো রাজি।

।৩।।একলা আমি-১।।

তুমি আমি এক হয়েছি,
এক হয়েও দূরেই আছি।
কাছে এসেও হওনি আমার,
মনের কথা কওনি তোমার।
শরীর দিয়ে শরীর ছুঁলে,
মনতো রইলো অনাদরে।
মনের খবর নাওনি তুমি
তাই মনের বনে একলা আমি।
সবার মাঝেও একলা আমি,
একেবারেই একলা আমি।
সত্যি বলছি একলা আমি।

।৪।।একলা আমি-২।।

নির্ঘুম রাত
আঁধারের সাথ।
স্বপ্ন হরণ
বুকে রক্তক্ষরণ।
একলা দিন
হাহাকার বীণ।
শুকনো ঝড়াপাতা
জীবনের শূন্য খাতা।
মেঘলা আকাশ
একলা নিবাস
বৈশাখী খরা
শুকনো চরা।
উত্তাল ঢেউ
সঙ্গে নেই কেউ।
ভালোবাসনি তুমি,
তাই একলা আমি।

।৫।। দুঃখ ও কষ্টের সন্ধি।।

চিরে দেখো আমার হাড়-পাঁজর,
সেখানে কতোটা যত্নে,
ভালোবাসার শত ঝর্ণার জলে
স্নিগ্ধ ও স্বচ্ছ করে রেখেছি তোমায়।

ভালোবাসা না পাওয়ার চিহ্ন বুকে নিয়ে,
নীল হয়ে জমে থাকা এক নদী কষ্ট চোখে মেখে
মেকি হাসির আড়ালে যখন নিজকে লুকাতে তুমি সচেষ্ট-
তখনই তোমার কষ্ট নদীর সাথে
আমার দুঃখ নদীর দেখা।
আমাদের ধূসর স্বপন তখন গোধূলীর আভায়
মায়াময় হয়ে উঠলো।

ফিরোজা আকাশের গোধূলি-আভির
আমাদের ধূসরতা ঢেকে দিলো,
আমাদের দুঃখের ও কষ্টের হলো সন্ধি।

।৬।। বন্ধু বিদায়।।

তোমার কাছে আমি চেয়েছিলাম-
স্বপ্ন রঙের ভালোবাসা।
তুমি দিয়েছো শুধু শরীরী উত্তাপ।

আমি আমাদের ব্যালকনিতে রাখতে
চেয়েছিলাম- বিশ্বাস মাথা অর্কিড
কিন্তু তুমি বসার ঘরে
রেখেছো অহংকারের প্রলেপ দেওয়া
দামি সব পাথর।
কিছুতেই মিল হয় না আমাদের।
সম্পর্কের ভ্যাপসা গন্ধে অক্সিজেন
নিতেও আজকাল আমার বড্ড কষ্ট হয়।
তাই হালকা জ্যোৎস্নার মতো মেয়েলি
অভিমান থেকে নয়,
পরবর্তী প্রতিটি শব্দের সচেতন
দায়িত্ব নিয়ে বলছি-
বন্ধু বিদায়।

।৭।। তোমার কথাই পড়ে মনে।।

মন যখন বৃষ্টি ভেজা
ভাবনারা সব আগুন আগুন।
নিজেই তখন নিজের সাজা
কষ্টগুলো হয় যে দ্বিগুণ।
বেদনায় যখন ভাঙে স্বপন
বুকে তখন ভীষণ ক্ষরণ।
তবুও বৃষ্টি ভেজা সবুজ দিনে
শুধু তোমার কথাই পড়ে মনে।

।৮।। কাটলো না তোমার নেশা।।

ছিলাম দুজনের ব্যথায় দু’জনে ব্যথি,
তুমি সখা আমি সখি।
তোমার দেওয়া ক্ষত আজ রক্তবরণ
তুমিই জান এসবের কি সেই কারণ।

পাথর চাপা দুর্বা আমি, ধূসর দুঃখ বুকে নিয়ে
পালকি পালকি মন তবুও স্বপ্নের সিঁড়ি সাজায় তোমায় ছুঁয়ে।

মিটলো না স্বপ্ন-আশা
কাটলো না আর তোমার নেশা।
বিদায়ী বসন্তের হুহু বাতাস
শূন্যে উড়ায় আমার নিবাস।

অবহেলার ঢেউকে ঝাপটে ধরে
তোমার কাছে ফিরে যায় এই মন বারে বারে।

।৯।।কিছু অনুভব।।

যদি ভালোবাসার প্রতিশ্রুতিতে শেওলা জমে,
তবে চুম্বনেও আসে অন্যমনস্কতা।
মানুষের মতো বেঁচে থাকা মনুষ্য জন্মেই হতো
যদি তুমি সত্যিকারে ভালোবাসতে।
কখনো কখনো অচেনা ভাষার মতো অবোধ লাগে
নতুন রঙে বদলে যাওয়া তোমায়।

যদিও তোমার আমার প্রিয় গান কবিতা মিলে যায়,
মিলে যায় ছেলেবেলার স্মৃতিচারণ।
আরো মিলে দুঃখ কিংবা দুঃখবিলাস।
মাঝেমধ্যে বুকের সাথে বুকও মিলে যায়
অথবা শুধু জামার বোতাম।
মিলে না শুধু ভালোবাসা ও তার অনুভব।

।১০।। ভাবছি কোনো এক বিকেলে।।
ভাবছি কোনো এক বিকেলে স্বর্ণচাপা রোদ মেখে,
হাঁটবো তোমার হাতে হাত রেখে গোধূলির স্বপ্নীল পথে।

গোধূলির রঙ মুছে গেলে মোহিত হীরক আলো জ্বেলে,
প্রেমে সুসজ্জিত হবো দুজনে।

অতঃপর পূর্ণিমার চাঁদ এসে হালকা রূপালি জ্যোৎস্নায়,
আমাদের ভাসিয়ে নিবে,
আমরা হারিয়ে যাবো সবচেয়ে সুন্দর কোনো স্বপ্ন বিলাসে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর